টাইট গুদ এর সেক্সি চোদন

বাংলাদেশী মেয়ে সানিকা। লম্বায় ছয় ফিটের বেশি, গায়ের রং ফর্সা, না মোটা- না পাতলা। চুলগুলো মাঝারি আর ঘন কালো। আর মাগির গুদ এর কথা না বললে হয়তো ভুল বলা হবে।কাজ করে বিদেশি কোম্পানী তে। সে সুবাদে বিদেশী লোকদের সাথে চলাফেরা। চাল-চলনও পেয়েছে বিদেশী লোকদের মত। পোষাক-আষাক থেকে সব কিছুই বিদেশী স্টাইল। একদিন ঘটলো কি ঘটনা- বিদেশী দুই পুরুষেল সাথে তার চ্যালেঞ্জ হয়েছিলো। তারা একটি রুমে সানিকার জন্য অপেক্ষা করছিলো। সানিকা এক সময় রুমটিতে এসে প্রথমে নাড়া মাথার লোকটিকে আকর্ষণ করলো। মাজা দুলিয়ে দুলিয়ে তার কাপড়-চোপড় খুলতে লাগলো। মনিকা এবার তার দুধ দুটোকে আলগা করে লোকটিকে আকর্ষণ করতে থাকলো।

অল্পক্ষণেই সেই নাড়া তার কাছে এসে মনিকাকে জড়িয়ে ধরলো। তখনও লোকটি টের পায়নি যে খানিকর গুদ এর চোদন কেমন অসহ্য চোদন। এবার অল্প দূরে আরো এক সুপুরুষকে লক্ষা করা গেল। ঐ নাড়া আবার ঐ লোকটিকেও আহবান করলো। এদিকে মনিকা অলরেডি বাড়ার ঠাপ গুদ এ খেতে লেগেছে। হেতু ঐ সুপুষের বাড়া চোষায় মত্ত হয়ে গেল। একব্র করে মনিকা গুদ এ বাড়ার ঠাপের আনন্দ উপভোগ করে আর নাড়াকে উৎসাহ যোগায় আবার অন্য লোকের বাড়া চোষায় ব্যস্ত হয়ে পড়ে। এবার শালঅ নাড়া ঘায়েল হলে মনিকা অন্য পুরুষের কোলে চঢ়ে নিজেই লোকটিকে ঠাপায় আর এক হাতে নাড়ার বাড়াকে আবার জেগে ওঠার জন্য তেরী করতে খাকে। মনিকা এবার সম্পূর্ণ উলংগ। কালো চুলগুলি তার ঠাপের তালে তালে পিঠে এসে বাড়ি খাচ্ছে আর অপূর্ব এক ছন্দ তেরী করছে ঠাপাঠাপির।

এভাবে মনিকার কাম উত্তেজনা এক সময় এতই বেড়ে গেল যে, সে আর একজনের ঠাপে আরাম পাচ্ছে না। পাবে কি করে মনিকা যে এখন একজন খানকি। খানকির চোদন দুপুরুষে নিচ্ছে এবার। ইতিমধ্যে নাড়া মনিকার পায়ুতে বাড়াটা পুরে দিয়ে পুরোদমে ঠাপ শুরু করলো। এতখএন বোঝা গেল মনিকা ঐ নাড়াকে আসলে তেরী করছিলো পায়ুকামের জন্য। পুরোদমে যখন ঠাপাঠাপি শুরু হয়ে গেল।, তখন চোখে যেন ঝাপসা দেখতে লাগলাম।  নিজের বাড়াটা কখন থেকে  লুঙ্গি ফুটে বের হতে চেষ্টা করছে খেয়াল করতে পারিনি। এমনসময় মনিকা খানকি পুত পুত করে একজনের মাল তার মুখে কত আদরের সাথে মেখে নিলো এই দেখে আমার আর সহ্য হলো না। লুঙ্গি যেন ভিজে উঠলো।